About the Department of DIS


আল্লাহ তা‘আলার পথে মানুষকে আহ্বান করা, ভালো কাজের আদেশ ও মন্দকাজ থেকে নিষেধ করা, বিভ্রান্তির অন্ধকার থেকে মানবতাকে উদ্ধার করা ঈমানের অনিবার্য দায়িত্ব। এটি মূলতঃ নুবুয়্যতী দায়িত্বেরই ব্যবহারিক ধারাবাহিকতা। নবীদের আগমনধারা বন্ধ হয়ে গেলেও তাঁদের রেখে যাওয়া দায়িত্ব রয়ে গেছে। নবীদের রেখে যাওয়া দায়িত্বসমূহ আঞ্জাম দেয়ার নামই হচ্ছে দা‘ওয়াহ। দাওয়াতী কাজ কিয়ামত অবদি চালিয়ে নেয়ার ব্যাপারে কুরআন ও হাদিসে ব্যাপক নির্দেশনা এসেছে। নবী সা. বলেন, “তোমরা আমার পক্ষ থেকে একটি বানী হলেও মানুষের কাছে পৌছে দাও” (সহিহ আল-বুখারী)।
কুরআন-হাদিসের নির্দেশনা মোতাবেক একদল খাটি দাঈ ইলাল্লাহ তৈরীর মানসে আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম ১৯৯৮ সনে দাওয়াহ অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগ খোলে। বর্তমান সময়ে ইসলামিক স্টাডিজ বিষয়ক বিভাগগুলোর মধ্যে সবচেয়ে আধুনিক বিভাগ হচ্ছে দাওয়াহ বিভাগ। আরব বিশ্বে সবচেয়ে বেশী গুরুত্ব এই বিভাগের। এ বিভাগের অধীনে শিক্ষার্থীরা কুরআন, হাদিস, আক্বিদাহ ও ফিকহের মৌলিক জ্ঞান লাভের পাশাপাশি ইসলামের সুমহান আদর্শকে কীভাবে মানুষের কাছে চমৎকারভাবে পৌছে দেয়া যায় তার কলা কৌশল শেখতে পারে। কম্পিউটার, ইংরেজী ও অর্থনীতির মতো আধুনিক কোর্সগুলোও তাদেরকে পড়ানো হয়। আধুনিক মিডিয়ায় দাওয়াতী কর্মকান্ড পরিচালনায় দক্ষ করে তুলতে দাওয়াহ বিভাগের শিক্ষার্থীদেরকে প্রজেক্টর, কম্পিউটার ল্যাব, স্মার্ট মনিটর ও নিজস্ব স্টুডিওতে নিয়মিত প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।


দাওয়াহ বিভাগের বৈশিষ্ট্য
  • ইসলামী ও আধুনিক জ্ঞানের সমন্বয় সাধন।
  • বিশ্বের খ্যাতনামা বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের সিলেবাস ও শিক্ষা পদ্ধতির অনুসরণ।
  • বিদেশে উচ্চশিক্ষাপ্রাপ্ত দেশী ও বিদেশী অভিজ্ঞ শিক্ষকবৃন্দের আন্তরিকতাপূর্ণ তত্ত্বাবধান।
  • রাজনৈতিক কলহ সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস।
  • আরবী ও ইংরেজী ভাষার মাধ্যমে শিক্ষা প্রদান।
  • বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও কার্যক্রমের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা ও প্রতিভা বিকাশের সুযোগ।
  • ছাত্র-ছাত্রীদের প্রতিভা বিকাশের জন্য জার্ণাল, ম্যাগাজিন ও দেয়া পত্রিকা ইত্যাদি প্রকাশের ব্যবস্থা।